ভবিষ্যত এর পুত্রসন্তান নুহশীষ এর জন্য লিখে রাখা একটি চিঠি, কাহিনী, গল্প কিংবা অতীতের কিছু গল্প, কাহিনি কিংবা চিঠি লিখে রাখা হলো সময় ভ্রমনের জন্য। যেখানে, তার নাম উল্লেখ করে লিপিবদ্ধ করে রাখা হলো।

কিছু কথাঃ গল্পটা আমার ভবিষ্যতের পুত্রের জন্য লেখা। তার সম্পুর্ন নাম প্রকাশ করছি না। সে এখনো পৃথিবীতে আসেনি। হয়তো আসবে। আমি তার জন্য একটি মা বা আম্মু খুজছি। খুঁজতে খুঁজতে আসলে সেরকম কাউকে পাইনি বল্ললে ভুল হবে। বর্তমান সময় থেকে শুরু করে পুর্বের সকল সময় ভ্রমণ করে একজন কে নির্বাচন করেছি। এটার কারন, আমি আমার পুত্র সন্তান কিংবা ছেলে এর জন্য একজন সৎ, আদর্শ, সুন্দরী, ভদ্র এবং কাছের মানুষদের খুব সুন্দর ব্যবহার দিয়ে তাদের খুব প্রিয় একজন হয়, ঠিক সেরকম। বিয়ে করেনি বা প্রেম করিনি ঠিক তা নয়। তবে, আমার সন্তান বা ছেলের জন্য তারা যোগ্য নয়। তারা ছিলো অন্যরকম। সে যাই হোক।

নুহশীষ অনেকদিন পর বাড়ীতে ফিরেছে। সে ইমাম মাহাদি নাম এক ভবিষ্যৎ এ আসবে এমন ব্যক্তিকে ভীষণ পছন্দ করে। তার অনুপ্রেরনায়, সে কখনো সনদপত্র এর আশায় থাকতো না। কারণ ঈমাম মাহাদী হবেন এমন একজন, যার কোন শিক্ষা বিষয়ক সনদ থাকবে না কিন্তু পৃথিবীর সকল এর থেকে অধিক জ্ঞান সম্পন্ন একজন ব্যক্তি হবেন। এছাড়াও, তাকে এক সময় সকলেই তাকে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তির স্থানে এবং তাদের প্রধান বানাতে চাইবে কিন্তু তিনি তাতেও অসম্মতি জানাবে। তিনি সাধারন থাকাকেই প্রাধান্য দিবেন। নুহশীষ ঠিক তারমতোই একজন। সাধারণ কজন মানুষ। খুব ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে পরার সুযোগ পেয়েও সে সনদ পত্রের আশায় থাকেনি। যা প্রয়োজন, ততো টুকু শিখে সে বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছে। এজন্য তার খরচও কম হয়নি। তার ইচ্ছে, সময় ভ্রমন করা। বেশ কিছু সুত্র সে জানার পর তা নিজের মতো করে আবিষ্কার করেছে। এর মধ্যে সময় ভ্রমণ এর উদ্দেশ্য বর্তমান, ভবিষ্যত এবং অতীতে যাওয়ার ক্ষমতাকে বোঝানো হয়েছে। সে বিশেষ কিছু করতে চায়। যাইহোক, তার চেষ্টায় যে সকল সুত্র সে পেয়েছে, তার মধ্যে আলোর গতিকে হার মানিয়ে বা আলোর গতিতে চলতে পারলে সময় ভ্রমন করা যায়। সে সেই চেষ্টায় আছে। সে প্রথমে ফিরে যেতে চায় অতীতে। অনেক কারণের মধ্যে শ্রেষ্ঠ কারন হচ্ছে, একটা মেয়ে তাকে পছন্দ করতো এবং তা অপ্রকাশিত ছিলো। সেও তাকে পছন্দ করতো। এখন তার মনে হচ্ছে, সে পৃথিবীতে যতো মেয়ে মানুষ দেখেছে, তার মধ্যে সে ছিলো শ্রেষ্ঠ এবং সে এও জানত তার পুর্বপুরুষ এর মধ্যে একজনের সাথে একই ঘটনা ঘটেছে। নুহশীষের ইচ্ছে, সে সেই সময়ে ফিরে যাবে। চলুন এবার গল্প শুরু করা যাক।নুহশীষ সিগারেট খায়। তার বিশ্বাস যদি কোনদিন কোন ডক্তার তাকে বলে যে সিগারেট খাওয়ার জন্য তার শরীরের সমস্যা হয়েছে, তার মানে সেই ডাক্তার এবং সেই চক্র তাকে মেরে ফেলতে চায়। পুর্বেও এরকম ঘটেছে এবং এই ঘটনা যাতে আবার না ঘটে সে ব্যবস্থা সে করবে। সে মনে প্রানে বিশ্বাস করে যে, সিগারেট খেলে ক্যান্সার হয় না। ক্যান্সার অন্য জিনিস। একটা ফাদ, শরীরের আত্মা বা প্রান কে হত্যা করার একটা ষড়যন্ত্র মাত্র। কারন, প্রান বা শরীরের আত্মাকে মেরে ফেললে, শুধু দেহ থাকে এবং তা কবরে রেখে আসা হয়। সময় ভ্রমনের সাথে এর একটা সম্পর্ক আছে।

আলোর গতিতে বা তার থেকেও দ্রুত কিভাবে চলা যায়! নুহশীষ এই ব্যাপারে ভাবছে। আলোর গতির থেকেও দ্রুত চলা মানুষের পক্ষে কি ভাবে সম্ভব! সে তার নিজস্ব ল্যাব রুমে ঢুকে একটা সিগারেট ধরালো। এরপর কম্পিউটারে তার কাজ করলো। হঠাৎ বিদ্যৎ চলে গেলো। আসলে নির্বাচনের সময়। তাই, পাতি নেতারা বিদ্যুৎ দিয়ে এবং আরো কিছু পদ্ধতি দিয়ে মানুষকে একটা আতঙ্ক এর মধ্যে ফেলে দেয় এবং ভয় ভীতি দেখিয়ে বার বার একই দল জয়ী হয়। হঠাৎ তার মাথায় আসে আলো নিয়ে এক চিন্তা। আলোর গতির সাথে সে একটা সম্পর্ক স্থাপনের জন্য কোন কোন সময়ে বিদ্যুৎ চলে যায় তা লিখে রাখলো এবং সে বুঝতে পারলো সেখানে স্পষ্ট একটা চিঠি। কিন্তু সে তা উদ্ধার করতে পাচ্ছে না। সমস্যাটা কোথায়! তখন সে নানা ভাবে তা বোঝার চেষ্টা করলো। সে হিসাব মিলালো ১=ক, ২=খ। কিন্তু মিলছে না। আলোর গতি তে ছুটতে পারার এটা একটা সুত্র হতে পারে। সে ভাবছে, এই সময়ে এর মধ্যে বিদ্যুৎ কেন চলে গেল! সে হিসেব মেলাতে থাকলো। 1=A, 2=B, 3=C………….13+1+11. M+A+D+D= Madd. M=Moon / M=Mohammad. 19+21+14=Sun. এভাবে সে হিসেব শুরু করলো। কিন্তু, সময় গুলো স্পষ্ট নয়। নুহশীষ, রাস্তায় বেড় হয়েছে। সময় ভ্রমন এবং সময় এর ইংরেজি Time. Time হচ্ছে সংখ্যা বা number. সে পুলসিরাত এর কথা মনে করলো। পুলসিরাত একটি রাস্তা, বেহেস্ত বা জান্নাত এর রাস্তা। কেউ যদি সে রাস্তা পার হতে না পারে, তাহলে সে জাহান্নাম বা Hell এ যাবে। তার কাছে, বিষয়টি সহজ হলো। কারন। প্রিয়ও হলো ভীষণ। কারণ, তাকে যে মেয়েটি ভালোবাসতো এবং সে যে মেয়েটিকে ভালোবাসতো যা অপ্রকাশিত এছাড়াও তার পুর্বপুরুষ এর এই নামে মেয়ের ভালোলাগার কথা সে প্রচলিত ছিলো। এই জান্নাত নামের একাধিক মেয়ের সাথে তার পরিচয় আছে। এমনকি জান্নাত নামের অন্য একটি মেয়েও তাকে ভালোবাসার কথা বলেছিলো। কিন্তু তার সাথে প্রেম হয়ে ওঠেনি। জান্নাত নামের মেয়েকে কেন্দ্র করে সে অনেক কিছু সৃষ্টি করেছে। বলা যায় যে, জান্নাত নামের মেয়ে এর সাথে তার পুর্ব পুরুষের অনেক প্রাচীন ইতিহাস আছে। তার বেড়ে ওঠা থেকে শুরু করে, তার সৃষ্টি গুলো জান্নাত কে কেন্দ্র করেই ছিলো। তাই সে, রাস্তায় এর রহস্য খুজে বেড় করা এবং সময় ভ্রমন সম্পর্কে উৎসাহিত হলো। প্রত্যেক গাড়ীর নাম্বার সে দেখতে লাগলো। এর কারন, সময় ভ্রমনের সাথে সংখ্যা এর সম্পর্ক। গাড়ীর নাম গুলোও সে দেখতে লাগলো এবং তার সাথে ভ্রমনের যে যোগ সুত্র আছে, তা উৎঘাটন করার চেষ্টা করলো। সে দেখে, এসব তারই কথাগুলোই বলছে। একটা ভাষা। এর ব্যাখ্যা এতো সহজে দেয়া সম্ভব নয়। সে জানে যে, যারা পাগল, তারা কোন হিসেব ছাড়াই জান্নাতে যাবে। এসব মৃত্যুর পরের ব্যাপার। তাই, সে এসব নিয়ে না ভেবে জান্নাত কে একটা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কল করলো। এই মেয়েকে তার পছন্দ হচ্ছে না। এই জান্নাত সেই জান্নাত নয় যাকে সে ভালোবাসে। তার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করলো। এরপর অন্য এক জান্নাতকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কল করলো। কথা হলো। তাদের খুব সুন্দর একটা সময় পার হলো। হঠাৎ তার এক পরিচিত ব্যক্তি শিমু নামের মেয়েকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কল করলো। তাদের কথা হলো। মেয়েটা মোটেই সুবিধার ছিলো না। সে হিজড়া, না মেয়ে নাকি ছেলে এই ব্যাপারে তার সন্দেহ আছে। সে সকলকে নিজের ভাবতো। জান্নাতের সাথে কথা শেষ হওয়ার পর কিভাবে যেন শিমুর সাথে কথা শুরু হলো। ভুলেই, সে তাকে জান্নাত ভেবে I Love You বলে ফেললো। সেও তাকে জান্নালো যে, কিভাবে তাকে প্রেম নিবেদন করতে হবে। হঠাৎ তার স্বাভাবিক জ্ঞান ফিরে আসলো। এরপর শীমু মেয়েটার ভাব দেখে তার ভীষণ মেজাজ খারাপ হতে লাগলো। ধের, এটা কি করলাম! যাইহোক। সময় ভ্রমন, জান্নাত, সংখ্যা, রাস্তা এসব নিয়ে সে ভাবা শুরু করলো। এছাড়াও নুহশীষ এর সাথে অস্বাভাবিক কিছু শুরু হলো। সে চোখ বন্ধ করলেই জান্নাত কে দেখতো। হঠাৎ সে এমন একজন মেয়ে তার চিন্তায় চলে আসলো যার জন্য সে নিজেকে ভীষণ অপরাধী ভাবতে লাগলো। এরপর কেটে গেলো অনেক দিন। সে শিমু এর কথা এবং তার নিকৃষ্ট চিন্তার কথা ভাবলেই নিজেকে ভীষণ পাপী এবং অপরাধী মনে হতে লাগলো। সে নানারকমের ভুল করতে লাগলো। সে তার সবথেকে প্রিয় এক ব্যক্তিকে আঘাত করলো। এরপর সে আরো অন্যরকম হতে লাগলো। আর বাহিরেও তার সাথে আরো একটা ঘটনা ঘটেছে। তা সে কখনো ভাবতে চায় না। তবুও লিখে রাখছি, নুহশীষ তার বাড়ীর একটা কুকুরকে মেরে ফেলতে দেখেছে। ভুল করে সে শিমুকে I Love You বলার পর শিমু তাকে ভুল নিয়ে তাকে প্রেম নিবেদন করতে বলেছিলো। অবাক ব্যাপার, বাড়ীর পাশে ফুল নামক একটি অভদ্র লোক তার বাড়ীর সেই কুকুরটিকে জঘন্য ভাবে হত্যা করেছিলো। সেটা দেখার পর, সে মানুষিক ভাবে ভীষণ আঘাত পেয়েছিলো। কারন, এতো জঘন্য ভাবে কুকুর টাকে মেরে ফেলা হয়েছিলো যে, সে ভীষণ মানুষিক আঘাত পেয়েছিলো। সে রাগে দুঃখ খুব কঠিন একটা সময় পার করছিলো আর ঠিক তখন সে তার প্রিয় এক ব্যক্তি কেও আঘাত করে। সে ভীষণ মানুষিক যন্ত্রনার মধ্যে পড়লো। এভাবে চলতে থাকলো অনেক দিন। সে এসব ব্যাপারকে সময় ভ্রমনের একটা পদ্ধতি মনে করলো। প্রিয় ভবিষ্যতের নুহশীষ, এর বেশি তোমাকে আর জানানো যাবে না। কারণ, এর বেশী জানা তোমার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। তবে, বলে রাখছি যে নিকৃষ্ট চিন্তাটা আমাকে ভাবিয়ে তুলেছিলো তার সমাধান উত্তর অথবা কারন আমি জানতে পেরেছি। এসব ছিলো কঠিন একটা পরীক্ষা। সেটা ছিলো রক্ত। যে রক্ত দেয়ার পরেও তোমার পুর্ব পুরুষের মধ্যে একজনকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। সামান্য সমস্যায় তার মৃত্যু হয়েছিলো। তার মৃত্যুর সুত্র তুমি এই গল্পেই পাবে। তুমি যদি কখনো অসুস্থ হও তবে ডাক্তার খোজার থেকে যাকে সহজ বাংলায় হাকিম বা যার অর্থ চিকিৎসক কিন্তু তাদের হাকিম চিকিৎসক বা ডাক্তার/doctor না বলে হাকিম বলা হবে এবং তাদের অবশ্যই মুসলিম হতে হবে, তার কাছে চিকিৎসা নিবে (যদি প্রয়োজন হয়)। আর যদি ডাক্তার/doctor কাছে যাও, মনে রেখো তারা শুধুই মানুষের ক্ষতি করে। মানুষ হত্যা করে। আশা করি তোমার কখনো ডাক্তার/doctor এর কাছে যাওয়ার প্রয়োজন হবে না। যদি ইচ্ছে হয়, জান্নাত নামের কোন মেয়ে কে জীবন সঙ্গী করিও। তুমি ভবিষ্যতেও আছো, বর্তমানেও আছো এবং অতীতেও আছো, আবার তুমি নেই! আবার বলে রাখছি, জান্নাত, জাহান্নাম, নবী এবং শয়তানে সব কিছু জানার পর যখন আল্লাহকে জেনেছি, তাকে জানার পর আমার কান্না এবং তার সৃষ্টির সম্মান ও ভালোবাসা আমাকে ভীষণ ভাবে কাঁদিয়েছে। সে কান্না এরকম চোখে হাল্কা পানি এবং মনের মধ্যে ভীষণ রকমের অন্যরকম এক অনুভুতি অনুভব করেছি যা লিখে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। আমি যদি না থাকি, তবে তুমি কে তা তুমি হয়তো কোন একদিন বুঝতে পারবে। আল্লাহর সৃষ্টি জান্নাত, জাহান্নাম, ফেরেস্তা, নবী, রাসুল এবং অন্যান্য। তার সৃষ্টির মাঝে তিনি আড়াল ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। পারলে তার ৯৯ টি নামের অর্থ মুখস্ত করবে, শুধু নাম নয়। এই লেখার মাঝেই আছে সময় ভ্রমনের একটি পথ। এর বেশি লিখে রাখা সম্ভব নয়, না হলে তা তোমার জন্য বিপদ হতে পারে। আল্লাহকে তখন বুঝতে পারবে, যখন তুমি শয়তানের ধোকায় পড়বে। তোমার মনে হতে পারে শয়তান খুব ক্ষমতাসীন । খুব স্বাভাবিক কিন্তু পৃথিবীর সৃষ্টির মধ্যে সব থেকে দুর্বল প্রানী বিড়াল বিড়ালের এর মতো দুর্বল এবং সে সমদ্রের পারের একটা বালুর বিন্দুর মতোই ছোট এবং ক্ষীণ। এতোটুকু সুত্র দিয়ে দিলাম। আমি সব থেকে কষ্ট পেয়েছি, যখন জেনেছি আল্লাহর সৃষ্টিই আল্লাহকে ভুলে যায় এবং তার বিরুদ্ধে চলে যায়। আর জান্নত! সেখানেও একটি ধোকা এবং স্বার্থের গল্প পাবে। জয় পরাজয়ের গল্প পাবে।

English:

A letter, story, story or some past story, story or letter written for future son Nuhsheesh is for time travel. Wherein, his name is mentioned and recorded. A few words: The story is written for my future son. Not revealing his full name. He has not yet come to earth. Maybe it will come. I am looking for a mom or mom for him. It would be wrong to say that I did not find anyone like that after searching. I have chosen one who has traveled all the time from the present to the past. This is because, for my son or son, I am honest, ideal, beautiful, polite and with very nice behavior of close people, they are very loved by them, just like that. It’s not like not being married or having a love affair. However, they are not eligible for my child or son. They were different. whatever he is Nuhsheesh returned home after a long time. He is very fond of a future person named Imam Mahdi. In his motivation, he never expected a certificate. Because Imam Mahdi will be someone who will not have any educational certificate but will be a person with more knowledge than anyone in the world. Also, at some point everyone wants to make him their superior and head but he refuses to do that too. He prefers to stay normal. Nuhsheesh is just like him. Ordinary people. Despite getting a chance to attend a very good university, he did not expect a certificate. He studied in several universities after learning what was necessary. Because of this, his expenses did not decrease. His wish is to travel through time. After learning about several sources, he invented it on his own. Time travel refers to the ability to travel to the present, future, and past. He wants to do something special. However, among the clues he found in his efforts, time travel was possible if he could beat the speed of light or move at the speed of light. He is in that effort. He first wants to go back to the past. The best of many reasons was that a girl liked him and it was undisclosed. He liked her too. Now he felt that she was the best girl he had ever seen in the world and he knew that the same thing had happened to one of his ancestors. Nuhsheesh wishes he would go back to that time. Now let’s start the story. Nuhsheesh smokes a cigarette. He believes that if a doctor ever tells him that he has a problem with his body because of smoking, it means that the doctor and the gang want to kill him. This has happened in the past and he will make sure it doesn’t happen again. He strongly believes that smoking does not cause cancer. Cancer is another thing. A fad is just a conspiracy to kill the soul or prana of the body. Because, if the Prana or soul of the body is killed, only the body remains and it is left in the grave. It has something to do with time travel. How to move at the speed of light or even faster! Nuhsheesh is thinking about this. How is it possible for people to run faster than the speed of light! He went into his own lab room and lit a cigarette. Then he did his work on the computer. Suddenly the power went out. It’s actually election time. So, the party leaders put people in a panic with electricity and other methods and the same party wins again and again by intimidation. Suddenly a thought about light came to his mind. To establish a relationship with the speed of light, he wrote down the time at which the electricity went off, and he realized there was a clear letter there. But he is unable to recover it. Where is the problem! Then he tried to understand it in various ways. He calculated that 1 = A, 2 = B. But it doesn’t match. This could be a source of being able to run at the speed of light. He wonders why the electricity went out at this time! He continued to calculate. 1=A, 2=B, 3=C………….13+1+11. M+A+D+D= Madd. M=Moon / M=Mohammad. 19+21+14=Sun. Thus he began to calculate. But, the timings are not clear. Nuhsheesh, has grown up on the road. Time travel and English Time. Time is a number. He remembered Pulsirat. Pulsirat is a road, the road to heaven or paradise. If one cannot cross that road, he will go to Hell. To him, the matter became simple. because Beloved too. Because, the girl who loved him and the girl he loved which is undisclosed also it was said that he loved the girl by the name of his ancestor. He is acquainted with more than one girl named Jannat. Even another girl named Jannat told him that she loved him. But he did not fall in love with her. He created many things centered around a girl named Jannat. It can be said that the girl named Jannat has a very ancient history with her ancestor. From the time he grew up, his creations centered on paradise. So he, on the road to discover its mysteries and get excited about time travel. He started looking at the number of each car. The reason for this is the relationship of numbers with time travel. He also started looking at the names of the cars and tried to discover the connection between them and the journey. He sees that these are his words. a language It is not possible to explain it so easily. He knows that those who are mad will go to heaven without any reckoning. These things are after death. So, without thinking about these things, he called Jannat through a mobile phone. He doesn’t like this girl. This paradise is not the paradise he loves. Cut off contact with him. Then another called Jannat through mobile phone. The talk is over. They had a wonderful time. Suddenly one of his acquaintance called the girl named Shimu through mobile phone. They talked. The girl was not at all comfortable. He has doubts about whether he is a transgender, a girl or a boy. He considered everyone his own. After the conversation with Jannat ended, how could the conversation with Shimu begin. Forgetting, he mistook her for paradise and said I love you. He also told her how to make love to her. Suddenly he regained his senses. After that Shemu saw the girl’s expression and started to feel bad. Wait, what did it do! However. He started thinking about time travel, heaven, numbers, roads. Also something unusual started with Nuhsheesh. When he closed his eyes, he saw heaven. Suddenly he thought of a girl for whom he felt very guilty. After that many days passed. He felt very sinful and guilty when he thought about Shimu and his evil thoughts. He started making various mistakes. He hurt the person he loved the most. Then he became more different. And outside, another incident happened with him. He never wants to think about that. Still writing, Nuhshish saw a dog in his house being killed. After she mistakenly told Shimu I love you, Shimu mistakenly asked her to propose to him. Surprisingly, next to the house, a rude man named Phul killed the dog of his house in a horrible way. After seeing that, he was deeply hurt in human terms. Because, the dog was killed in such a horrible way that it suffered a lot of human injuries. He was going through a very difficult time with anger and sadness and just then he hurt someone he loved. He fell into great human pain. This continued for many days. He thought of these things as a method of time travel. Dear future Nuhsheesh, you can’t be told more than that. Because knowing too much can be harmful for you. However, I have come to know the solution, answer or reason for the worst thought I had. These were tough tests. It was blood. Even after giving blood, it was not possible to save one of your ancestors. He died of minor complications. You will find the source of his death in this story. If you ever get sick, seek treatment from a doctor (if needed) who is a Hakim in simple Bengali, but they are called Hakims, not doctors, and they must be Muslims. And if you go to a doctor, remember they only harm people. kill people Hopefully you will never need to see a doctor. If you want, marry a girl named Jannat. You are in the future, in the present and in the past, and you are not! Again, after knowing everything in Paradise, Hell, the Prophet and Satan, when I came to know Allah, my tears after knowing Him and the respect and love of His creation made me cry profusely. Those tears brought light tears to my eyes and I felt a very different feeling in my mind which cannot be expressed in writing. If I don’t exist, maybe someday you will understand who you are. Allah created Paradise, Hell, Angels, Prophets, Messengers and others. He was, is and will be hidden in the midst of His creation. Parle will memorize the meaning of his 99 names, not just the name. There is a way of time travel within this writing. It is not possible to write more than that, otherwise it may be dangerous for you. You will understand Allah when you fall into the deception of Satan. You may think Satan is very powerful. Very normal but the weakest animal in the world’s creation is a cat as weak as a cat and it is as small and weak as a grain of sand on the seashore. I have given so much source. I have suffered the most when I know that God’s creation forgets God and goes against Him. And paradise! There will also be a story of deceit and self-interest. Victory will get the story of defeat.

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

0
    0
    Your Cart
    Your cart is emptyReturn to Shop