Hey virus, the word is hell and the right formula is in Bangla. হা, (হারুন) কার? অবশ্যই এটা চিন্তার বিষয়!

বিঃদ্রঃ এই আবিষ্কার, তথ্য বা শিক্ষা সকল মুসলমান ব্যাক্তি এর জন্য বিনামূল্যে । যদি অন্যকোন ধর্মের ব্যাক্তি এই তথ্য বা আবিস্কার থেকে জ্ঞান সংগ্রহ করে, তবে এই শিক্ষার মুল্য ২০/০৪/২০২৪ এর সময়ের ১০০০০০ কোটি টাকা মুসলিম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ নির্মান, এতিমখানা, মেধাবী মুসলিম শিক্ষার্থীদের তাদের ইচ্ছেমতো প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনা করা এবং থাকা খাওয়া থেকে শুরু করে সকল প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র প্রদান, মুসলিমদের জন্য ব্যয় করা। ১০০০০০ কোটি টাকার মধ্যে ১ কোটি টাকা মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শুভ, খিয়ারপাড়া, রায়তি সাদুল্যাপুর, শানেরহাট, পীরগঞ্জ, রংপুর, ৫৪৭০, বাংলাদেশ এর কাছে সরাসরি সাক্ষাতের মাধ্যমে দিতে হবে।

কেননা, কার এর আবার ইংরেজি বানান এবং অর্থ আছে। এবার আসি কারের বানানে Car. Car হচ্ছে proper noun. Car হচ্ছে একটি গাড়ী। এবার আসি অর্থ পাচার এর তদন্তে। বাংলাদেশের অর্থ পাচারকারী গাড়ী। কিভাবে! গাড়ী ইংরেজিতে Gare/Gari. এবার আসি অংক অধ্যায়ে। একটার পর একটা বর্ণ সাজালে, A=1, B=2, C=3. So, Gare/ Gari এর সন্ধি বিচ্ছেদ করলে হয়, Ga+Re/Ga+Ri. So G+A=71+re. তাহলে আমরা বাংলাদেশের ইতিহাস অধ্যায়ে আসি। ইতিহাস এবং search engine এর সকল Number এর Popular keyword research করলে বা keyword research করলে পাওয়া যায় ৭১ বা ইংরেজিতে 71. তাহলে, ১৯৭১ চলে আসে! তখন যুদ্ধ ছিলো। কেন হয়েছিলো সেই যুদ্ধ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা আসলে কে এনেছিলো! এবার আসি তদন্তে। আমরা জানি শেখ মজিবর/ মুজিবর এবং জিয়াউর রহমান এর মধ্যে বর্তমানে চলমান তর্ক কিংবা বিতর্কে! ১৯৫২ সালের অধ্যায় এখানে না যুক্ত করলেই নয়। আসলে, ১৯৫২ সালে সত্যিকারের মেধাবী ছাত্রদের বা যোদ্ধাদের যুক্ত করলেই নয়। কারন, ১৯৭১ সালের সাথে ১৯৫২ সালের সম্পর্ক আছে। ১৯৫২ সালে হয়েছিলো ভাষা আন্দোলন। শহীদ বা মৃত্যু হয়েছে যেসব চূড়ান্ত পর্যায়ের মেধাবি ছাত্র বা যোদ্ধাদের, তাদের মাঝে ছালাম নামের ব্যাক্তি অন্যতম। আরো বেশ কয়েকজন আছেন। আমি তাদের নাম উল্লেখ করছি না। যদি তাদের নাম জানতে চান, Google এর search engine এর সাহায্য নিতে পারেন। তাহলে এবার আসি ৭১ বা ১৯৭১ এর অধ্যায়ে। মজিবর / মুজিবর এবং জিয়াউর রহমান বা জিয়া এর মধ্যে কে আসলে স্বাধীনতা এনেছিলো! আমার উত্তর কেউ না। তাহলে কে এনেছিলো স্বাধীনতা! অবশ্যই ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন যুদ্ধের শহীদ বা মৃত্যুবরন করা যোদ্ধারা। এবার আপনার প্রশ্ন হতে পারে, কিভাবে! উত্তর পরে দিবো তবে সেই ভাষা আন্দোলনে মৃত্যু বরন করা ব্যাক্তি দের মৃত্যুর কোন বিচার হয়নি! তাই একই নামের ব্যাক্তিদের একই ভাবে গোপনে তাদের নাম যুক্ত ব্যক্তিদের গোপনে হত্যা চালায় সেইসব খুনিরা। সেইসব খুনিদের যখন কেউ থামায়নি বরং নিজের এবং নিজের রাজনীতি এর সাথে যুক্ত ব্যাক্তিরা নিজেদের শ্রেষ্ঠ বলে দাবি করছিলো খুনি সহ বিদেশী চক্ররাও। ভাবতে পারেন তাদের বিচার হয়নি। এটা আপনাদের ভুল ধারনা। কোন এক সুত্রে জানা গিয়েছে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন এর বিরোধী এবং খুনি সকল এর শাস্তির দাবিদে ভাষা আন্দোলনকারী ব্যাক্তি এর উত্তরাধিকারি একজন চরম পর্যায়ের যোদ্ধা শুরু করেন তাদের বিরুদ্ধে সঠিক বিচার এবং যুদ্ধ Mission Internet technology 4 soft space war. সুত্রমতে জানতে পারা যায় যে, করোনা বা COVID virus সেই যোদ্ধা তৈরী করেন সকল ঘাতকদের একই পদ্ধতিতে নির্মুল করা এর এক পদ্ধতি। ভাষা আন্দোলন এর বিরুদ্ধে সকল ব্যাক্তিদের নির্মুল করা ছিলো তার একমাত্র উদ্ধেশ্য এবং তিনি একাই সেই সব ঘাতকদের নির্মুল করেন। সকলেই সে যুদ্ধে পরাজিত হয় একজনের কাছে। তথ্যমতে জানতে পারা যায়, তিনি সকল যুদ্ধে যুক্ত শ্রেষ্ঠ অপরাধি এবং নিরপরাধি ব্যাক্তিদের ব্যাপারে শিক্ষা অর্জন করেন। এবার আসি মজিবর এবং জিয়া এর সঠিক ইতিহাসে। তবে আমাদের ফিরতে হবে ১৯৫২ সালে। সালাম শব্দের অর্থ শান্তি এবং মহান আল্লাহ এর ৯৯ নামের মধ্যে একটি নাম। যুদ্ধ হয় 20 শব্দ থেকে। 20 বা ২০ এর বাংলা নাম বিশ। এই বিশ কে কুড়ি বলতে উঠে পরে লাগে কিছু দেশ বা গোষ্ঠি বা ধর্ম। এই যুদ্ধ্যে পাওয়া যায় হাকিম/হেকিম বা Doctor দের। তারা বিশেষ ভুমিকা পালন করেন। চিকিৎসক বা হাকিমরা তাদের ঔষধ লেখা তালিকায় প্রথমে লেখা থাকে Rx. এই Rx এর কারন এবং সঠিক অর্থ সকল চিকিৎসক বা হাকিম কিংবা Doctor রা জানেন না। এখানে R দিয়ে শুরু বা নামযুক্ত ব্যক্তিদের x বা তাদের নির্মুল বা বাদদেয়ার বা হত্যা করার কথা বলা হয়েছে। কারন, বিশ এবং কুড়ি এর শব্দের যুদ্ধে K+R=x কে বুঝানো হয়েছে। তারা চিকিৎসা বিজ্ঞানে অপরাধী ব্যাক্তি। আরো প্রমান দিচ্ছি, Rx, A=1,B=2…….. X= 20/ ২০. ভাষা আন্দলনে যুক্ত অপরাধিরা নিশ্চিন্তে মানুষ হত্যা এখনো চালাচ্ছে। T20 ক্রিকেট এ যুক্ত বা আয়োজক রা আসলে ভাষা আন্দোলন এ যুক্ত ব্যাক্তিদের খুনিরা। বাংলাদেশ কি ভুলে গেলো ১৯৫২ সালের কথা! এর সাথে যুক্ত অপরাধীরা হত্যা কার্যক্রম চালাচ্ছে অনেক দূর থেকে। তারা ব্যবহার করছে প্রযুক্তি। তার চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে করোনা Virus চালু করে সেই একজন যোদ্ধা একাই নির্মুল করেছে কোটি এর বেশি অপরাধীদের যারা যুক্ত ছিলো সেইসব খুনিদের সাথে। সুত্র মতে জানতে পারাযায়, তিনি তার এই সাফল্যের বা যুদ্ধ জয়ের বা এর কাহিনি অজানায় রেখেছেন। আমি সেই যোদ্ধাকে স্মরণ করি শ্রোদ্ধার সাথে। সে যাইহোক, তার ব্যাপারে শুধু এতোটুকু জানা গেছে তিনি সকল শ্রেষ্ঠ যোদ্ধাদের সকল পদ্ধতি শিখে নিয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, অপরাধি যোদ্ধাদের কাছ থেকেও শিক্ষা নিয়েছেন তাদের কৌশল জানার জন্য। তিনি এক কৌশলে বাংলাদেশের সমস্যাও সমাধান করেছেন। জিয়া না মজিবর বা মুজিব যুদ্ধ শুরু করেছিলেন। সুত্র(জিয়া) Z/J= Same. J, i= A. / Z, i =a. সুত্র মুজিবর/মুজিবর। Mojibor/Mujibor,

A=1. 1st/First. J, i=A.
Mojibor/Mujibor= M/Mo
Gare= 71 again or আবার। বা God=Alla, Re বা আবার।
মজিবর= Mo, Mo for Mohammad. Mohammad means messenger. Or Mo=Moon. The source or light comes from top of the sky source.

So, স্বাধীনতার উৎস হচ্ছে A. তাহলে আমাদের মানতেই হবে, A এবং M এর মধ্যে কোনটা প্রথম! অবশ্যই A.
S=A, L+A=M বা Source or Sun or Son S=A. L= Light+A to M/Moon. So, it’s proof that, prophet Hazrot Mohammad (S:) have a relation with nurture of universe and he visit to light years of distance to Alla and he meet with Alla.

So, স্বাধীনতার এবং এর যুদ্ধ শুরুর আদেশ এসেছিলো আল্লার কাছ থেকে। শুধু তাই নয়, সব সৃষ্টি, ধ্বংস এবং সবকিছু তার আদেশেই হয়। সেই হিসেব করলে বোঝাযায়, জিয়া প্রথম আবার অপর দিকে মোহাম্মাদ কিংবা মো কিংবা Mo or Mojibor / Mozibor সে দ্বিতীয় । তবে আল্লাহতায়ালা সকলের সামনে সকল সুত্র রেখেই গিয়েছেন। M দিয়ে Messenger বা বার্তা বাহক হয়। M দিয়ে Moon এবং Moon কিন্তু আলোর বার্তাবাহক। এরপর দেখাযাচ্ছে M দিয়ে শুরু ব্যক্তি নিজেকে প্রধান মন্ত্রী এর স্থান নিয়েছে। তারমানে, সে নিজেকে শ্রষ্ঠা এর সাথেও তুলনা করেছে। তাই তার হয়েছিলো করুন পরিনিতি।

Gare= God+Alla= Re. এই অনুরোধ যারা করে, তাদের শাস্তি ভয়াবহ। কারন, God অন্যধর্মের এবং আল্লাহ এক এবং অদ্বিতীয়। তারসাথে কারো তুলনা হয়না। তাহলে G কোথা থেকে আসলো! Mo G Bor এর উচ্চারনও মজিবর। Mo=God! of course NO. তারমানে, তার যে বুদ্ধি উদয় হয়েছিলো, তা ছিলো ভিন্ন ধর্মের ব্যক্তিদের কাছ থেকে যারা শ্রষ্ঠাকে God বলে দাবি করে। আজকে যদি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস সকলে মনে রাখতো, তাহলে ভিন্ন দেশ থেকে আসা God এর শিক্ষা থেকে আমরা অনুপ্রাণিত হতামনা। তাই, সকল কে আড়াল করে শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে দেয়া হচ্ছে জিপিএ ৫ বা তুমি শেষ নবীর উম্মত এবং A+ বা যুক্ত. যারা A+ পায়নি, তারা অন্য নবী এর উম্মত। আসলে তারা চেয়েছিলো অন্যভাবে ব্যপারটি উপস্থাপন করতে। অন্যধর্মের + যুক্ত লকেট যা যীশু এর অনুসারী। তারা ভেবেছে যে, তাদের যীশু এর হত্যা করার পদ্ধতিতেই হত্যা করবে। কিন্তু যা ঘটেছিলো ঈসা (আঃ) নবীর এর সময়ে, তাকে যখন হত্যা করতে এসেছিলো, আল্লাহ তাকে আসমানে নিয়েছিলেন এবং সেই সব হত্যাকারীদের মধ্যে যে প্রথম ঈসা (আঃ) কে খুন করতে এসেছিলো, সেই তার মতো দেখতে হয়েছিলো এবং তারা তাদের লোককেই হত্যা করে। তো, Car বা ৭১ যারা আবারো চায় বা আবারো সেইরকম চিন্তা চেতনা চায়, তারা হচ্ছে মারাত্মক রকমের অপরাধী এবং আল্লাহ তাদের সেইভাবেই শাস্তি দেন।

শেষ নবীর উম্মত হওয়ার জন্য পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের পরিবর্তে জিপিএ ৫ কে যারা শ্রেষ্ঠ মনে করছে! তারা অবশ্যই কঠিন শাস্তির মধ্যে দিয়ে যাবে। তাই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ুন এবং সাথে জিপিএ ৫ বা অকৃতকার্য হোন! কোন সমস্যা নেই। শুধু নামাজ পড়ুন এবং আল্লাহ কে স্মরণ করুন এবং নবী রসুলদের জীবনী পড়ুন এবং সে ভাবে চলুন। পবিত্র কোরআন শরীফ পড়ুন। মুক্তি এবং স্বাধীনতা তবেই পাবেন! গাড়ী,৭১, কার, এসব এর থেকেও ১৯৫২ সালের ভাষাআন্দোলন থেকে পাওয়া শিক্ষা অর্জন করুন। কুড়ি আর বিশ এর মাঝে যে রহস্য আছে, তা যদি জানতে পারেন, তবে সঠিক শিক্ষা পাবেন। যে যোদ্ধা করোনা এর মাধ্যমে সঠিক বিচার করেছেন, আমি সেই যোদ্ধাকে স্মরণ করি, আমি সেই শ্রষ্ঠাকে স্মরণ করি। তিনি আর কেউ নন, মহান আল্লাহতালা। তার ইচ্ছেতেই সব কিছু হয়। তিনি সৃষ্টি করেন এবং ইচ্ছে হলে ধ্বংস করেন। শয়তানের হাত বা শতানের থেকে রক্ষা পেতে চাইলে আল্লাহ এবং ইসলামের পথে আসুন। যদি আপনার ইচ্ছে হয়, আপনিও শয়তান দেখবেন, তাহলে T20/ বা ২০ এবং কুড়ি কিভাবে হলো, এইসব শব্দের মাঝে খুনি কিভাবে ওৎপেতে আছে। বিশ এবং বিষ, ২০ / কুড়ি / Kuri, R=i/u/you. Rx. এইসব শব্দের মাঝে কি রহস্য লুকিয়ে আছে, তা জানলে আপনার অনেক জ্ঞান বৃদ্ধি পাবে এবং শয়তানের উপস্থিতি বুঝতে পাবেন। এমনো হতে পারে, শয়তানের সাক্ষাৎ ও পেতে পারেন! তবে বিশ কে যদি কুড়ি বলেন, তবে আপনি আপনার জীবনের যুদ্ধে হেরে হেলেন বা শয়তানের কাছে হেরে গেলেন। আর যদি ২০ বা বিশ কে বিশ বলেন তবে আপনি বিজয়ীদের মধ্যে একজন। আর যদি বিশ কে বিষ মনে করেন, তবে আপনি অবিশ্বাসী নাস্তিক এবং দোজখ বা জাহান্নাম এর পথযাত্রী। আর তাই বলা হয়েছে বিশ্বাস বা ঈমানের ব্যাপারে। পৃথিবীর যে দেশেই যান বা যে ভাষায় ব্যাবহার করুন, আল্লাহ হচ্ছে সকল কিছুর শ্রষ্ঠা । তিনি এক এবং অদ্বিতীয় । তার কোন শরীক নেই। আবার তিনি আছেন সবখানে। সকল মুসলিমদের আল্লাহ ভালোকরুক।

বিঃদ্রঃ এই আবিষ্কার, তথ্য বা শিক্ষা সকল মুসলমান ব্যাক্তি এর জন্য বিনামূল্যে । যদি অন্যকোন ধর্মের ব্যাক্তি এই তথ্য বা আবিস্কার থেকে জ্ঞান সংগ্রহ করে, তবে এই শিক্ষার মুল্য ২০/০৪/২০২৪ এর সময়ের ১০০০০০ কোটি টাকা মুসলিম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ নির্মান, এতিমখানা, মেধাবী মুসলিম শিক্ষার্থীদের তাদের ইচ্ছেমতো প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনা করা এবং থাকা খাওয়া থেকে শুরু করে সকল প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র প্রদান, মুসলিমদের জন্য ব্যয় করা। ১০০০০০ কোটি টাকার মধ্যে ১ কোটি টাকা মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শুভ, খিয়ারপাড়া, রায়তি সাদুল্যাপুর, শানেরহাট, পীরগঞ্জ, রংপুর, ৫৪৭০, বাংলাদেশ এর কাছে সরাসরি সাক্ষাতের মাধ্যমে দিতে হবে।

আসসালামুয়ালাইকুম, সকলেই ভালো থাকবেন।
মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শুভ
খিয়ারপাড়া, রায়তি সাদুল্যাপুর, শানেরহাট, পীরগঞ্জ, রংপুর, ৫৪৭০, বাংলাদেশ

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

0
    0
    Your Cart
    Your cart is emptyReturn to Shop